মা আর খালার গোপন যৌন আলাপ

আমি সাদিয়া। আমার বয়স ৩৩, বিবাহিতা, ২ সন্তানের মা। আমরা বেশ কয়েক বছর আগে থেকে সুইডেনে সপরিবারে বসবাস করছি। আমি আজ একটা ছোটবেলার ঘটনার কথা লিখছি।

আমি তখন বেশ ছোট ছিলাম। আমরা কানাডাতে থাকতাম। বাবা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াত আর মা হাউজ ওয়াইফ। আমরা ৩ ভাই-বোন ছিলাম। আমি, আমার ছোট এক বোন আর সবার ছোট ভাই। আমাদের আশেপাশে তেমন বাঙলাদেশী কোন পরিবার ছিলনা। কয়েকটা ছিল মাত্র, আর বেশীরভাগ ছিল ভারতীয়। একবার আমরা লম্বা একটা ছুটিতে বাঙলাদেশে গিয়েছিলাম। আমাদের নানা বাড়ী ছিল ঢাকাতে। আমার মা‘রা ৩ বোন ছিল, আর ২ ভাই। মামারা সবার বড়। আমার মা বোনদের ভেতরে দ্বিতীয়। আমার বড় খালা ওদের পরিবার নিয়ে ওনেক আগে থেকে নিউজিল্যান্দ থাকত। আর ছোট খালা দেশে থাকত। সবাই বিবাহিতা। আমার মার বয়স তখন ৩৮-৩৯ হবে, বড় খালা ৪০-৪২, আর ছোট খালা ৩৪-৩৫।

সেবার ছুটির সময় বড় খালাও এসেছিল দেশে বেড়াতে খালার ছোট ছেলে-মেয়ে নিয়ে। খালু আসিনি। নানা-নানী বড় মামার সাথে নিজের বাসায় থাকত, আর ছোট মামা পরিবার নিয়ে নিজেদের বাসায় থাকত। সেবার সবাই মামা-খালারা একসাথে হওয়াতে বেশ হৈচৈ আর মজা হয়েছিল আমাদের। দু-তিন দিন পর একদিন বেলা দশ এগারটার দিকে বেশ বরষা নেমেছিল। বাসায় আমি, মা, বড় খালা আর নানা-নানী ছিলাম। একটা ঘরে মা আর বড় খালা খাটে বসে কাথা সেলাই করছিল, আর আমি পাশে শুয়ে ছিলাম কাথা মুড়ী দিয়ে। সেই সময় মা আর বড় খালার মাঝে যে কথাবারতা হয়েছিল, সেটা নিয়ে আজকে লিখছি।
মা আর খালা নিজেদের সঙসারের কথা বলছিল। একসময় আলাপের মোড় ঘুরে গেল। একটু গোপন ধরনের আলাপ শুরু করল। আমি পাশে শুয়ে আছি তাই মনে হল একটু ইতস্তত বোধ করছে। বড় খালা আমাকে ডাকল –
সাদিয়া তুই ঘুমাইছিস?
আমি কিছু না বলে চুপ করে থাকলাম। মা-খালা ভাবল আমি ঘুমিয়ে আছি। এরপর ওরা আবার শুরু করল।

খালাঃ – কিরে তোর শরীর তো দেখছি দিন দিন আরো সুন্দর হচ্ছে, পেটে মেদ জমে যাচ্ছে।
মাঃ – তোর ও তো একি রকম, বয়স বাড়ছে বলে মনে হয় না।
খালাঃ – এখন রোজ রোজ করিস তোরা?
মাঃ – নাহ, ওর বাবার আর এখন ওত হয় না, তোরা করিস রোজ?
খালাঃ- না, তোর দুলাভাই বরাবরের মত খুব একটা করতে চাইনা। তোদের ওখানে পরিবেশ কেমন? বাইরের লোকজনের সাথে মেলামেশা করার মত সুযোগ আছে?
মাঃ- হু আছে, তবে আমাদের দেশি লোকজন নেই তেমন একটা, বেশীরভাগ ভারতীয়। তোদের ওখানে কেমন?
খালাঃ- আমাদেরও এক রকম, তবে সাদা, কালো, ভারতীয় সবরকম আছে আমাদের এলাকায়। ওখানে তো আছিস ১০-১২ বছর হলো, ভালো আলাপ পরিচয় করে তুলেছিস কারো সাথে?
মাঃ- হু, আছে পরিচিত কিছু।
খালাঃ- আশিক (আমার বাবা) তো তেমন করে না বললি, তাহলে সামাল দিস কি করে? বিয়ের আগের অভ্যাস আছে তোর এখোনো?
মাঃ- ধুর, কিযে বলিস!
খালাঃ- কেন, ওখানে তো আর কেও দেখতে আসবে না, যে যেখানে ইচ্ছে যেতে পারে, যার সাথে ইচ্ছে মিশতে পারে, কেও কি মানা করতে যায় নাকি!
মাঃ- তাতো অবশ্য ঠিক।
খালাঃ- তাহলে আর কি?
মাঃ- কি আর, তোর কথা বল, শুনি আগে। তোর ও কি আগের অভ্যাস আছে?
খালাঃ- আমি ছাড়িনি, সময় সুযোগ পেলে আমি করি। আর মিলি-রনিরা (খালার ছেলেমেয়ে) তো বড় হয়ে গেছে, ওরা স্কুলে থাকে, এখন আরো সুবিধে হয়েছে। বিয়ের আগে তো ঝুকি থাকত, পেট হয়ে যায় নাকি, এখন তো আর ঐ সমস্যা নেই।
মাঃ- কোথায় করিস, তোর ঘরে, নাকি বাইরে গিয়ে?
খালাঃ- যেখানে যখন সুবিধে হয়। তুই কোথায় করিস?
মাঃ – আমিও ঘরে বাইরে যেখানে সুবিধে হয়।
খালাঃ – কয়জনের সাথে শুইছিস?
মাঃ – তা হবে বেশ কিছু।
খালাঃ – বল না, আমার তো গোটা বিশ মত হবে।
মাঃ – আমার দশ-পনর হবে।
খালাঃ – কাদের সাথে করিস? ইনডিয়ান না অন্য?
মাঃ – আমাদের এলাকায় ইনডিয়ান বেশী। তুই?
খালাঃ – আমি সব ধরনের সাথে করেছি। তুই কালোদেরটা নিয়েছিস?
মাঃ – নাহ, ওদের দেখতে আমার ঘেন্না লাগে, ভয় লাগে, মনে হয় সাইজ খুব বিশাল হবে। তুই কালোদের সাথে করিছিস?
খালাঃ – হু, করিছি।
মাঃ – সত্তি? বাপরে বাপ তোর সাহস আছে। কি রকম সাইজরে ওদের? কয়জনের সাথে করিছিস?
খালাঃ – আসলেও বিশাল সাইজ, ৮-৯ ইনচি হয়। আমি ৩ টে কালোর সাথে করিছি।
মাঃ – তাহলে তো তোরটা একবারে হলহলে করে দিয়েছে। নিতে পারিস সবটুকু ভেতরে?
খালাঃ – হু, ঐ রকম মনে হয়, তুই নিলে বুঝবি একদম গলায় এসে লাগে মনে হয়।
মাঃ – কোথায় পেলি ওদের?
খালাঃ – আমাদের বাসা রিপেয়ার করতে এসেছিল একবার একটা, ওর সাথে করেছিলাম।
মাঃ – একদিন, নাকি আরো অনেক দিন করতে এসেছিল?
খালাঃ – আসতো মাঝে মাঝে, আমিও ফোন করে আসতে বলতাম।
মাঃ – অন্য দুটো?
খালাঃ- একবার গিয়েছিলাম তোর দুলাভায়ের সাথে একজায়গায়। আমি হোটেলে ছিলাম, তোর দুলাভাই বাইরে গিয়েছিল কাজে। হোটেলে আমাদের পাশের রুমে একটা ছিল। পরিচয় হয়ে ওর রুমে নিয়ে গিয়েছিল আমাকে, ওখানে করেছিলাম। আরেকটা একটা বিয়ের দাওয়াতে গিয়েছিলাম, ওখানে খাওয়ার টেবিলে পরিচয় হয়ে ওকে আসতে বলেছিলাম বাসায়। তুই কি শুধু ইনডিয়ানদের সাথে?
মাঃ – হ্যা, তবে আমাদের দেশীও আছে।
খালাঃ – ইনডিয়ানরা কি হিন্দু?
মাঃ – হু, তুই হিন্দুদের সাথে করিছিস?
খালাঃ – হু করিছি। তোর দুলাভায়ের দুজন হিন্দু কলিগের সাথে করিছি। তুই কি সবার সাথে একবার করে নাকি অনেকবার করে করিছিস?
মাঃ- কিছু আছে এক-দুবার, কিছু আছে অনেকবার।
খালাঃ- কেও অনেকদিন ধরে রেগুলার করে তোকে?
মাঃ – হ্যা, একজন করে গত ৩ বছর ধরে।
খালাঃ – এখোনো করে?
মাঃ – হু
খালাঃ দেশে আসার আগে করেছে?
মাঃ – হু
খালাঃ কবে?
মাঃ – যেদিন আসলাম ঐদিন।
খালাঃ কখন?
মাঃ – বের হবার একটু আগে। লোকটা আমাদের দালানেই অন্য তলায় থাকে। আমরা গুছিয়ে বের হয়ে নিচে এসেছি, তখন দেখালাম অবিনাস দাদা বাইরে থেকে ফিরে এলো। আমার তো দেখে ওখানে পানি এসে গেল। ভাবলাম, অনেক দিনের জন্য দেশে যাব, করা হবে না। ঐ সময় ওর বাবা বলল, তোমরা দাড়াও আমি ৭-১১ থেকে টেপ কিনে নিয়ে আসি। ওর বাবা চলে গেল, আমি সাদিয়াদের বললাম, তোরা এখানে থাক, আমি একটু লোপা ভাবীর সাথে দেখা করে আসি। একথা বলে আমি লোকটার ফ্লাটে গেলাম। বেশি সময় ছিলনা হাতে। আমাকে দেখেই বলল, বৌদি দেশে যাবেন আমার তো উপোস করতে হবে। আমি বললাম, সেজন্য শেষ বেলা একটু ঠাপ খেতে আসলাম। একথা বলে আমি ওর লুঙি খুলে ওরটা মুখে নিয়ে চুষে খাড়া করে দিলাম, এরপর বেডের ধারে হেট হয়ে দাড়িয়ে পেছন থেকে শাড়ী-সায়া তুলে ধরলাম, আর আমাকে করল।
খালাঃ – কনডম লাগাসনি?
মাঃ- নাহ, সময় ছিল না তাই সরাসরি ঢুকাতে বললাম।
খালাঃ মাল ফেলল কোথায় তোর গুদে?
মাঃ হু, এরপর আমি ঘুরে ওরটা চেটে পরিস্কার করে দিয়ে আবার শাড়ি-সায়া ঠিক করে বেরিয়ে আসলাম।
খালাঃ – ধুয়ে আসিস নি?
মাঃ – হি হি, না। ঐ ভাবে এয়ারপো্ট ।
খালাঃ – নিচে নেমে আসলে ওরা কি বলল?
মাঃ – দেখলাম ওর বাবা ফিরে এসেছে। আমার দিকে তাকিয়ে বলল, বৌদির সাথে দেখা হল? তোমার ঠোটের কনায় কি লেগে আছে ওটা সাদা?
আমি হাত দিয়ে দেখি আঠালো, ওর মাল, ওরটা চেটে দেবার সময় ওখানে লেগে গিয়েছে। আমি হাত দিয়ে মুছে নিয়ে জিব দিয়ে চেটে বললাম, ওহ, বৌদি শুজি খেয়ে দিয়েছিল একটু, তাই লেগে আছে, তাড়াতাড়ি করে আসতে গিয়ে মুছতে পারিনি।
খালাঃ – বাহ, তুই তো বেশ মজা করতে পারিস। তা ঐ লোকটার কি ফ্যামিলী নেই?
মাঃ- না, বিয়ে করিনি।
খালাঃ – তোকে কতদিন ধরে করে?
মাঃ – ৩ বছর।
খালাঃ – তাহলে তো রোজরোজ করে তোকে।
মাঃ – তা প্রায়।
খালাঃ – তুই যেয়ে করিয়ে আসিস, নাকি এসে করে যায়?
মাঃ দুভাবেই হয়?
খালাঃ কখন করে
মাঃ ও নাইট শিফট এ কাজ করে, তাই সকাল বেলা ফেরে। ওদের বাবা ওদের নিয়ে সকাল ৮টার দিকে বারিয়ে যায়। আমি একা থাকি বাসায়। ওরা চলে গেলে আমি ওর ফ্লাটে যাই, অথবা লোকটা ঘরের যাবার আগে আমার ফ্লাটে এসে করে চলে যায়। মাঝে মাঝে দুপুর বেলা একবার করে। আবার মাঝে মাঝে সকালে একবার দুপুরে একবার করে।
খালাঃ – তাহলে তোর ফুটো অনেক ঢিলা করে দিয়েছে নিশচয়। কনডম লাগাস সবসময়?
মাঃ – না
খালাঃ প্রেগন্যানট হয়েছিলি কখনো?
মাঃ একাবর হয়েছিলাম।
খালাঃ – তো কি করলি?
মাঃ ওর ডাক্তার ফ্রেন্ডের কাছে নিয়ে গেলো ফেলে দিতে।
খালাঃ ডাক্তার কি বলল, লোকটার তো বৌ নেই।
মাঃ – ঐ আরকি, ও বলে দিল মুখ টিপে যে পাশের বাসার বৌদি।
খালাঃ – তাহলে তো ডাক্তার ও লাগিয়েছে তোকে এরপর।
মাঃ – তা কি আর বলতে, ইনডিয়ানরা ফ্রি পেলে ছাড়ে? সপ্তায় ২-৩ দিন যেতে বলত ক্লিনিকে, ওখানে করত।
খালাঃ – বাসায় আসতো?
মাঃ- হু, দুজন একসাথে আসতো মাঝে মাঝে, আবার কোন কোনদিন আমাকে যেতে বলত অনিমেষ দাদার ফ্লাটে।
খালাঃ – দুজনে একসাথে করতো?
মাঃ – হু।
খালাঃ – কেমন লাগেরে? আমি কোনদিন করিনি এমন।
মাঃ- দারুন লাগে।
খালাঃ – বাইরে কোথাও করিয়েছিস কাওকে দিয়ে?
মাঃ- একবার একটা বিয়েতে, আর কয়েকবার হিন্দুদের পুজো দেখতে গিয়ে হয়েছিল।
খালাঃ – আর কোথায় করিয়েছিস?
মাঃ ওরা যখন ছোট ছিল আমি ওদের নিয়ে যেতাম স্কুলে। বাইরে একটা রেস্ত্তরাতে বসে থাকতাম, বা সুপার মার্কেটে যেতাম। ঐভাবে দেখা হয়েছিল ওনেকের সাথে। ওরা ওদের বাসায় বা গাড়ীতে নিয়ে বা গারাজে নিয়ে করেছে।
খালাঃ – একদিনে ভিন্ন ভিন্ন একাধিক জনের সাথে করিছিস?
মাঃ – হু, ৩ জন ভিন্ন ভিন্ন, একবার একটা পয়লা বৈশাখের মেলাতে গিয়ে।
খালাঃ – সবারটা চুষে দিস? রস খাস নাকি?
মাঃ- হু চুষি, রস খাই।
খালাঃ – সাবধানে করিস এসব, আর কনডম ব্যবহার করিস। কে কোথায় কার সাথে করে রোগ-বালাই বাধিয়ে রেখেছে তার ঠিক আছে? এজন্যি তো বলছিলাম, তোর গায়ে-গতরে এতো মেদ লেগেছে কেন। এখন বুঝলাম, হিন্দুদের মাল গুদে নিয়ে চুষে খেয়ে তোর দেহ নাদুস-নুদুস হয়েছে।
মাঃ- তোর ও তো একই ব্যাপার – বলে দুজনেই খিলখিল করে হাসতে লাগলো।

ঠিক, ঐ সময় নানী ভেতর থেকে মাদের ডাক দিল। খালা বলল, চল মা ডাকছে যাই, পরে আবার আলাপ হবে।